পুলিশ-ইউএনও’র সাথে বৈঠকের দশদিন পর কাকড়া কেড়ে নিলো প্রাণ 

পুলিশ-ইউএনও’র সাথে বৈঠকের দশদিন পর কাকড়া কেড়ে নিলো প্রাণ 


জাহিদুল ইসলাম জাহিদ: শর্ত ভঙ্গ করে সুন্দরগঞ্জের রাস্তাঘাটে আবারো বেপরোয়া হয়ে উঠছে অবৈধ ট্রাক্টর কাকড়া। মঙলবারও দানব এই যানবাহনের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রাণ হারিয়েছে এক বাইসাইকেল আরোহী। যদিও কাকড়া মালিকদের নেতা দাবী করেছেন ট্রলি চাপায় তার মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল দশটার দিকে উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের পূর্ব ঝিনিয়া গ্রামের ভাজন ব্যাপারীর হাটখোলার দক্ষিণে নিজাম মাষ্টারের বাড়ির সামনে কাঁকড়ার ধাক্কায় বাইসাইকেল আরোহী আঃ কুদ্দুস মিয়ার (৩৮) মৃত্যু মারা যান বলে অভিযোগ করা হয়। নিহত ওই কৃষক শান্তিরাম ইউনিয়নের পরান গ্রামের মৃত দিয়ানত উল্লাহ ব্যাপারীর ছেলে। স্থানীয়রা জানান, ঘটনার সময় আঃ কুদ্দুস মিয়া বাইসাইকেল যোগে নিজ বাড়ি থেকে ঝিনিয়ার বাজার যাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে বেপরোয়া ছুটে আসা ইট বোঝাই কাঁকড়া ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহিল জামান জানান, বিষয়টি শোনামাত্র এসআই রায়হানুজ্জামানকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়েছি।

তবে উপজেলা ট্রাক্টর মালিক ও শ্রমিক পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম জানান, ডিজেল চালিত শ্যালো মেশিনের তৈরি ভটভটির ধাক্কায় বাইসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়। কাঁকড়ায় নয়। 

এরআগে অবৈধ যান কাকড়ার চাকায় একের পর এক মানুষ হত্যা বন্ধে পুলিশ-প্রশাসনকে পত্র দেন গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী। তার পত্র প্রাপ্তির পর বেশ কয়েকদিন বন্ধ চলাচল বন্ধ থাকে অবৈধ ট্রাক্টর কাকড়া। শেষ পর্যন্ত গত ১৩ ফেব্রুয়ারী সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের সাথে বৈঠকের পর বেশ কয়েকটি শর্ত জুড়ে দিয়ে কাকড়া চালানোর অনুমতি দেয়া হয়। এই অনুমতি পাওয়ার ১০ দিনের মাথায় রাতের বেলা চালানোর শর্ত ভঙ্গ করে দিনের বেলা কাকড়া বের করলে এই দূর্ঘটনা ঘটে।